টেবিলের কেউ যখন ন্যাপকিনের ব্যবহার শুরু করবেন, আপনিও তখনই শুরু করবেন। টেবিল থেকে ন্যাপকিনটা নিয়ে ভাঁজ খুলে উরুর উপর রাখবেন। ন্যাপকিন অনেক বড় সাইজের হলে পুরো ভাঁজ না খুলেই ব্যবহার করবেন, ছোট সাইজের হলে পুরোটাই খুলে ব্যবহার করবেন।

ন্যাপকিন দেওয়ার কারণ হলো খাবার সময় কোন কারণে খাবার পড়ে গিয়ে যাতে ড্রেস নষ্ট না হয়। সুতরাং ন্যাপকিন দিয়ে হাত, মুখ, কার্টলারি ইত্যাদি মুছবেন না। ন্যাপকিন ঘাড়ে তুলে রাখাটাও খুবই বিরক্তিকর ব্যাপার। একইভাবে হাত-মুখ মুছার জন্য টেবিলে টিস্যু দেওয়া হয়। সুতরাং টিস্যু দিয়ে কার্টলারি, প্লেট, গ্লাস ইত্যাদি মুছবেন না। এজাতীয় কোন কিছু যদি অপরিষ্কার মনে হয় ওয়েটারকে ডেকে বলুন।
আপনি খাবার সার্ভ করলে নিজের প্লেটে খাবার নেওয়ার পর আপনার ডান পাশের লোকের দিকে ডিস এগিয়ে দিন। বাম পাশেও দেওয়া যাবে, তবে ডান পাশে দেওয়াই বেটার।

সবার প্লেটে খাবার পৌছার পর খাওয়া শুরু করবেন। একা একা খাওয়া শুরু করাটা খারাপ দেখায়। তবে ফরমাল লাঞ্চে বা ডিনারে চিফ গেস্ট খাওয়া শুরু করলেই কেবল অন্যরা শুরু করবেন। চিফ গেষ্ট খাওয়া শেষ করলে টেবিলের অন্যদের খাওয়া শেষ না হলেও খাওয়া বন্ধ করবেন।

টেবিল থেকে কার্টলারি হাতে নেওয়ার পর আবার আবার টেবিলের উপর না রেখে প্লেটে রাখবেন। আউটসাইড ইন রুল ফলো করে কার্টলারি ব্যবহার করবেন। ছুরি থাকবে ডান হাতে আর কাঁটা চামুচ থাকবে বাম হাতে। ছুরি রাখার প্রয়োজন হলে প্লেটের উপরের দিকে রাখবেন।

কার্টলারি দিয়ে খেতে পারলে কার্টলারি দিয়েই খাবেন। একান্তই যদি না পারেন, তাহলে হাত ধুয়ে এসে হাত দিয়ে ভদ্রভাবে খাবেন। কিন্তু একবার কার্টলারি, একবার হাত ব্যবহার করে খাবেন না। তবে কিছু কিছু খাবার আছে যেগুলো হাত দিয়েই খেতে হয়। সেগুলোর জন্য আবার কার্টলারি ব্যবহার করতে যাবেন না।
খাবার টেস্ট না করেই খাবার সিজনিং করবেন না। কেউ যদি সিজনিং করার জন্য সল্ট কিংবা পিপার চায়, তাহলে তাঁকে দুটোই একসাথে এগিয়ে দিন। কোন জিনিস নেওয়ার দরকার হলে নিজে দাঁড়িয়ে গিয়ে তুলে নেবেন না। পাশের জনকে এগিয়ে দিতে অনুরোধ করবেন।

চামুচের সাইড দিয়ে খাবেন। খাবার গরম হলে ফুঁ দিয়ে ঠান্ডা করতে যাবেন না। খাবার আপনাআপনি ঠান্ডা না হওয়া পর্যন্ত ধৈর্য্য ধরে অপেক্ষা করবেন। খাওয়া শুরু হওয়ার পর টেবিলে কুনই রাখবেন না।
খাবার মাঝখানে প্রক্ষালন কক্ষে যাওয়ার প্রয়োজন হলে ন্যাপকিন ভাঁজ করে আপনার সিটের উপর রেখে যাবেন। যাওয়ার সময় বিস্তারিত কিছু না বলে Excuse me, I will be right back বলে চলে যাবেন। আর কার্টলারি V উল্টালে যেরকম হয় সেরকমভাবে প্লেটে রেখে যাবেন।

খাবার শেষে কার্টলারি অন্য কোথাও না রেখে প্লেটে রেখে দেবেন। তবে কার্টলারি রাখার কিছু সিস্টেম আছে। কার্টলারি প্লেটের উপর-নিচ বরাবর সমান্তরালে রাখলে ওয়েটার বুঝবে আপনার খাওয়া শেষ। কার্টলারি প্লেটের ডান-বাম বরাবর সমান্তরালে রাখলে ওয়েটার বুঝবে আপনার খাবারগুলো ভালো লেগেছে। খাবার মন্দ লাগলে কাঁটা চামুচের ভেতরে ছুরি ঢুকিয়ে দিয়ে V উল্টালে যেরকম হয় সেরকমভাবে প্লেটে রেখে যাবেন। ওয়েটার যা বুঝার বুঝে যাবে।

মোবাইল ফোন সাইলেন্ট করে রাখবেন। খাবার সময় মোবাইলে কথা বলা একদম অভদ্রতা। খাবার টেবিলে অফিসিয়াল, পলিটিক্স, রিলিজিয়ন বা গুরুত্বপূর্ণ কোন কথা না বলাই ভালো। তবে সাহিত্য, শিল্প, মুভি ইত্যাদি নিয়ে কথা বলতে পারেন। মুখে খাবার নিয়ে কিংবা কার্টলারি হাতে নিয়ে নাড়াচাড়া করে কথা বলবেন না। কেউ কোন প্রশ্ন করলে মুখের খাবার শেষ করে উত্তর দিবেন।

মুখে খাবার নিয়ে পানি পান করবেন না। এমনকি কারো দিকে তাকিয়ে পানি পান করবেন না। গ্লাসের দিকে চোখ রেখে পানি পান করুন।
ছুরি দিয়ে সব খাবার একেবারে কেটে ফেলবেন না। একবার কিংবা দুইবার মুখে দেওয়া যায় এমন পরিমাণ কাটুন। গোগ্রাসে খাবেন না। বেশি ক্ষুধা থাকলে বাসা থেকে হালকা খেয়ে অনুষ্ঠানে যাবেন অথবা অনুষ্ঠান শেষে বাসায় এসে খাবেন।

সম্ভব হলে টেবিলের সব খাবারই অল্প করে হলেও খান। একেবারে না খেলে অনেকে ভাববে উক্ত খাবারগুলোতে আপনার এলার্জি আছে। অবশ্য এলার্জি থাকতেই পারে। তবে সম্ভব হলে সেটা হোস্টকে জানাতে পারেন।
বুফে সিস্টেমে খাবার হলে টেবিলের প্লেট নিয়ে খাবার আনতে যাবেন না। খাবার আইটেমের পাশে যে প্লেটগুলো থাকে সেখান থেকে প্লেট নেবেন। একবার খাবার নিয়ে টেবিলে আসার পর দ্বিতীয়বার খাবার আনতে যাওয়া যাবে না। খাবার লাগলে ওয়েটারকে ডেকে খাবার আনতে বলবেন।

খাবারের দিকে মুখ নিয়ে যাবেন না, মুখের দিকে খাবার নিয়ে আসবেন। খাওয়ার সময় যাতে মুখে কোন শব্দ না হয় সেদিকে নজর রাখবেন। মুখ বন্ধ করে খাবেন। কার্টলারির টুং টাং আওয়াজ যাতে না হয় সেদিকেও নজর রাখবেন।

ছুরি দিয়ে মাছ কাটার চেষ্টা করবেন না। কাঁটা চামুচ দিয়ে মাংসগুলো আলাদা করে ফেলুন। খাবারের মধ্যে যদি চুল বা পোঁকা পান, চিল্লাচিল্লি করবেন না। ওয়েটারকে ডেকে ম্যানেজ করে ফেলুন। খাবার যত টেস্টই হোক প্লেট চাটবেন না, সব খাবার শেষ করে ফেলবেন না।

খাওয়া শেষে ন্যাপকিন ভাঁজ করে আপনার প্লেটের বাম পাশে রেখে দেবেন। টেবিলে কোনভাবেই টুথপিক ব্যবহার করবেন না।

খাওয়ার পরপরই দৌড় দিবেন না। একটু অপেক্ষা করে বিদায় নেবেন। বিদায় নেওয়ার আগে হোস্টকে ধন্যবাদ দেবেন।

Credit: Ahasanur Haque Saikat Talukder

Leave a Reply