ই-কমার্সে মানুষ প্রথমে পণ্য ক্রয় করে না, ক্রয় করে পণ্যের আকৃতি ও বর্ণনা। কি অবাক হচ্ছেন? সুপার সপ গুলোতে যেভাবে পণ্য দেখে ও স্পর্শ করে কেনা যায় ই-কমার্সে তা সম্ভব নয়। এমনকি ছবি ও বর্ণনা দেখে অর্ডার দেওয়ার পর ক্যাশ অন ডেলিভারিতে পার্সেল নিলে বিল পরিশোধের পূর্বে খুলে দেখার সুযোগ থাকে না অনেক সময়। একমাত্র না দেখতে পারার কারণে ক্রেতারা দ্বিধাদ্বন্দ্বে থাকে অনেক সময়। এ সমস্যার সমাধানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে ‘আস্থা বা বিশ্বাস’।

ই-কমার্সে যেহেতু পণ্য দেখে কেনার সুযোগ নেই তাই পণ্যের ছবি, বর্ণনা, রিভিউ বা রিকমেন্ডেশন দেখে কেনাকাটা করে থাকে ক্রেতারা। এতে পছন্দের ব্র্যান্ড বা উদ্যোক্তারা অগ্রাধিকার পায়। অগ্রাধিকার পাওয়ার অন্যতম কারণ পছন্দের ব্র্যান্ড বা উদ্যোক্তাদের প্রতি আস্থা বা বিশ্বাস থাকা।

পছন্দের তালিকায় রাখা হয় সাধারণত সুপ্রতিষ্ঠিত ব্র্যান্ড, ইতিমধ্যে তাদের সার্ভিস ও প্রোডাক্ট ব্যবহার করে সন্তুষ্ট হলে, প্রতিবেশীদের রিকমেন্ডেশন পেলে, পরিচিত উদ্যোক্তা হলে, অথবা ঐ উদ্যোক্তা বা পেজ সম্পর্কে বেশি মানুষের পজিটিভ ফিডব্যাক থাকলে, এ গুণাবলী গুলো থাকলে সাধারণত কোন ভাবনা ছাড়াই ক্রেতারা অর্ডার করেন প্রয়োজনীয় বা শখের পণ্য গুলো।

ই-কমার্সে শুধু অর্ডার করেই শেষ নয় এডভান্স পেমেন্ট (অধিকাংশ সময়) করতে হয় এবং প্রোডাক্ট টি দ্বারা প্রয়োজন মেটানো হয়। এ ক্ষেত্রে আস্থা গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট হিসেবে চিহ্নিত হয়।

নতুন ও ছোট উদ্যোক্তাদের যেহেতু শুরুতে পর্যাপ্ত মার্কেটিং বাজেট থাকেনা তাই আস্থা বাড়াতে সোশ্যাল মিডিয়াকে কাজে লাগাতে পারে। এর জন্য প্রয়োজন পোস্ট কমেন্টের মাধ্যমে নিয়মিত একটিভ থাকা। অফলাইন ইভেন্ট গুলোতে অংশ নেওয়া। এক্সেস্টিং ক্রেতাদের রিভিউ ও ছবির প্রচার করা, ক্রেতাদের সাথে সুন্দর আচরণ করা, প্রোডাক্ট/সার্ভিস নিয়ে বিস্তারিত ও নিয়মিত তথ্য দেওয়ার মাধ্যমে নতুন ক্রেতাদের মাঝে আস্থা স্থাপন করতে পারে।

আস্থা বাড়াতে পাড়লে নতুন নতুন ক্রেতা তৈরি হবে, পুরাতন ক্রেতারা রিপিট হবে, ক্রেতারা ভরসার সাথে কেনাকাটা করবে, অন্যদের রিকমেন্ডেশন করবে, ব্র্যান্ড ভ্যালু বৃদ্ধি পাবে, ফিডব্যাক পাওয়া যাবে ইত্যাদি। এভাবে পণ্যের প্রচার ও ই-কমার্সের ব্যবহার বাড়বে।নতুন পণ্য বিক্রি নিয়ে তেমন সমস্যা হবে না।

উদাহরণ দিয়ে যদি বলি, গত একবছর যাবৎ উইমেন এন্ড ই-কমার্স ফোরাম (উই) তে আমরা দেখে আসছি ক্রেতারা মনের আনন্দে কেনাকাটা করছে, এডভান্স পেমেন্ট করতেছে, রিটার্ন কম হচ্ছে, রিভিউ দিচ্ছে ইত্যাদি। এর মূলে আস্থা নিরব ভূমিকা পালন করছে। অর্থাৎ কেউ পণ্য কেনাকাটা করে ঠকে থাকলে অভিযোগ করার সুযোগ পাচ্ছে।

মোঃ দেলোয়ার হোসেন

By admin